সৃষ্টি কী ও কেন

পত্রিকাটি ওয়েবে প্রথম প্রকাশিত হয় ২০০৪-এর মার্চ মাসে। বাংলা ভাষায় ওয়েবম্যাগ প্রকাশ পেত কয়েকটা। তার মধ্যে ‘সৃষ্টি’ শুরু হয়েছিল নতুনদের জন্যে, যাঁরা নতুন লিখছেন তাঁদের জন্যে। উদ্দেশ্য ছিল পাঠকদের সামনে নতুন লেখা তুলে ধরা। যা টিকে থাকবে, সেটা নেহাতই পাঠকের বিচারে থাকবে। লেখালেখি করে পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছেন– শূন্য ও প্রথম দশকের বেশ কিছু কবিলেখকের প্রথম লেখা সৃষ্টি প্রকাশ করেছে। এ পর্যন্ত নিয়মিত ও অনিয়মিতভাবে সৃষ্টি-র ৩৫টি সংখ্যা প্রকাশ পেয়েছে। সেটাকে প্রথম পর্ব হিসাবে চিহ্নিত করে সৃষ্টি ৩৬ থেকে শুরু হল এই পত্রিকার দ্বিতীয় পর্ব।

এখন বাংলা সাহিত্যের একটা বড় অংশ ফেসবুকে প্রকাশ পায়। ওয়েবম্যাগের সত্যিই দরকার আছে কি? ওয়েবপত্রিকায় প্রকাশিত লেখার পুরোটাই ফেসবুক টাইমলাইনে পোস্ট করে দেন বেশ কিছু লেখকই। লেখা পড়তে ওয়েবম্যাগের সাইটে আসারও দরকার আর পড়ে না অনেক সময়। তাহলে? কেন সৃষ্টি ওয়েবম্যাগ।

উত্তর আমাদের তরফে খুব সহজ। সৃষ্টি আবার প্রকাশ পাচ্ছে শুনে নতুন উদ্যমে অনেকেই লেখা মেল করছেন। আমরা যারা আর পাঁচজনকে নিয়ে একসঙ্গে চলার চেষ্টা করি, তাদের জন্যে এটুকুই যথেষ্ট। আশা করা যায়, ইন্টারনেট-সাহিত্যের নতুন পরিসরে সৃষ্টির দ্বিতীয় পর্বে আমাদের এই পথচলা আরও রোমাঞ্চকর হয়ে উঠবে।